বিরহের বাংলা কবিতা শূন্যতা : অমিত পাল

                      


                           শূন্যতা 

                                 -অমিত পাল 

প্রিয়া যবে তুমি দূরে গেলে চলি , আমার সমুখ ছাড়ি, 

হৃদয় বীণায় সব সুর ভুলি ,বিষাদে উঠিলো ভরি ৷

গরজে শাওন তরসে এ মন , যমুনায় ভরে জল ৷

কেন তবু তারে শান্ত করিতে, মানেনাতে কোনো ছল ৷

বাতায়ন খুলি বসিয়া রহিনু, তোমার পথ চাঁহি ৷ 

বিরহী হৃদয় উঠিলো বাজিয়া, ব্যাথার গজল গাহি ৷৷ 


যে রূপ হেরিয়া মম অন্তর, প্রেমেতে গিয়াছে ভরি ৷

সেই মুখছবি পৃথিবীর বহু দেশেতে খুঁজিয়া ফিরি ৷

গঙ্গার ধারে বালুর কিনারে এঁকেছিনু কত  ছবি, 

সে ছবি বুঝি টানিয়া লইলো মস্ত টেউয়ের রাশি ৷

চোখের তারায় বরষা ঘিরিয়া, মুছিয়া গিয়াছে হাঁসি ৷৷


বাদলের সনে কহিয়াছি কথা , গাহিয়া প্রেমের গান ৷ 

সেই গানে আজি সুর নেই যেনো,থামিয়াছে কলতান ৷

যে হৃদয় প্রেমে ছাপিয়া উঠিলো সহসা হইলো খালি ৷

ঝরিয়া পড়িলো প্রেমের বকুল,বাগিচাতে স্তব্ধ মুকুল ,

তোমার বিরহে একাকী মরমী, শূন্য বাগান মালি ৷ 


আর কখনো হবে না তো দেখা,কথা যে রহিলো বাকী 

সেকথা মনে পড়িতেই সখি, সজল নয়ন আঁখি ৷ 

যুগ যুগ ধরে করিয়াছি তোমা প্রেমের নিবেদন, 

স্বপনের ঘোরে জড়াইয়া ধরে, বুকেতে আলিঙ্গন ৷

সে বুক আজি শূন্য হইলো, রৌদ্রদগ্ধ বণ ৷৷


যত কথা তুমি কহিয়াছো মোরে, সকলি হৃদয় তটে 

আঁকিয়া নিয়েছি তোমার রঙে আমার প্রেমের পটে ৷ সে রঙে রাঙিয়া মানস প্রিয়া,ব্যাথার রঙে রাঙিলো হিয়া, দুর গগনে মেঘেরই গায়, এ কোন বাদল মাদল বাজায়, হঠাৎ চমকি হৃদয় কাঁপিছে তাহার আর্তনাদে ৷ মানস প্রিয়া, পড়েছিলাম তোমার আঁখির ফাঁদে ৷৷


কত যে বর্ষ চলিয়া গিয়াছে, রাহুর গ্রাসের মুখে ৷

কত যুগ ধরে প্রেমের তেষ্টা জমিয়া রাখিনু বুকে ৷

না মিটিলো সাধ পিয়াসী হৃদয়, সহসা ডাকিলো বাণ ৷

শাওনের জল থইথই করে নামিলো মস্ত প্লাবন ৷৷ 

মনমন্দিরে প্রেমের ধূপে, গন্ধে বিষাদে রাগে, 

এ হৃদয় প্রিয়া জনমের তরে তোমারেই শুধু মাগে ৷৷

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ